Wednesday, February 28, 2024
Google search engine
Homeদক্ষিণবঙ্গবিদেশী কয়লায় চলা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে অক্টোবর পর্যন্ত ১০০% উৎপাদন

বিদেশী কয়লায় চলা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে অক্টোবর পর্যন্ত ১০০% উৎপাদন

এল-নিনোর প্রভাবে পরিবেশের তাপমাত্রা ‘অসহ্য রকম’ বাড়ছে। তাই,অফিস- কাছারি থেকে বাসস্থান সর্বত্রই যথেচ্ছ বাড়ছে এয়ারকন্ডিশনারের ব্যবহার। পাল্লা দিয়ে চাহিদা বাড়ছে তাপ বিদ্যুতের।

বিশেষ সংবাদদাতা,রানীগঞ্জঃ এল-নিনোর প্রভাবে পরিবেশের তাপমাত্রা ‘অসহ্য রকম’ বাড়ছে। তাই,অফিস- কাছারি থেকে বাসস্থান সর্বত্রই যথেচ্ছ বাড়ছে এয়ারকন্ডিশনারের ব্যবহার। পাল্লা দিয়ে চাহিদা বাড়ছে তাপ বিদ্যুতের। বাড়তি বিদ্যুৎ যোগানের জন্য কেন্দ্র এবার বিদেশ থেকে আমদানি করা কয়লা-নির্ভর তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি অক্টোবর মাস পর্যন্ত উৎপাদন চূড়ান্ত পর্য্যায়ে বজায় রাখার নির্দেশ দিল। বিদ্যুৎ আইনের ১১ নং ধারায় বিদেশী কয়লা নির্ভর বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলিতে নির্দিষ্ট সীমার বেশী উৎপাদনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা আছে। কিন্তু,অগস্ট-সেপ্টেম্বরের অসহনীয় উষ্ণতার দরুন,জরুরি ভিত্তিতে ওই ধারার প্রয়োগ অক্টোবর মাস পর্যন্ত প্রত্যাহার করে,১৫টি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রকে উৎপাদনে জোর দিতে বলা হয়েছে। এদের মধ্যে টাটা,আদানি,জিন্দালের মতো বহুজাতিক বিদ্যুৎ সংস্থাগুলিই বেশী লাভবান হবে। চলতি মাসের ১৭ অগস্ট দেশে বিদ্যুতের চাহিদা ২.৩৪ লক্ষ মেগাওয়াটে পৌঁছায়,যা সর্বকালীন রেকর্ড। দেশের বিদ্যুৎ ক্ষেত্রের নিয়ামক সংস্থা সি.ই.এ ( সেন্ট্রাল ইলেট্রিসিটি অথরিটি) র হিসেবে দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যুতের চাহিদা ২.৩০ লক্ষ মেগাওয়াটকেও তা ছাপিয়ে যায়।  সি.ই.এ’র  পরিসংখ্যান মোতাবেক,বছরের অগস্ট-সেপ্টেম্বরের গড় বিদ্যুতের ব্যবহার ৪৬ শতাংশ থাকে প্রতি বছর,এ বছর যা ৯৪ থেকে ৯৯ শতাংশেও পৌঁছে গেছে। “ এ সবই আসলে কিন্তু ‘এল-নিনো’ এফেক্ট বলে আমাদেরকে জানিয়েছে কেন্দ্র। রাজ্যের বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলির জন্য আমরা অবশ্য এখনি এমন কিছু ভাবছি না,” বললেন রাজ্যের বিদ্যুৎ মন্ত্রী অরুপ বিশ্বাস।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments