Friday, May 24, 2024
Google search engine
Homeদক্ষিণবঙ্গনির্বাচন ঘোষণার পরও চলছে সরকারি প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপের কাজ

নির্বাচন ঘোষণার পরও চলছে সরকারি প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপের কাজ

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: নির্বাচনী নিঘন্ট ঘোষণা হয়েছে। শনিবার থেকে চালু হয়েছে আর্দশ নির্বাচনী আচরণ বিধি।তবুও কুচ পরোয়া নেহি। মডেল কোড অব কনডাক্টকে তোয়াক্কা না করেই চলছে সরকারি প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপের কাজ। বেপরোয়া শাসকদলের নেতা কর্মীরা। পূর্ব বর্ধমানের গলসি ১ নম্বর ব্লকের উচ্চগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের কোলকোল শিশু শিক্ষা নিকেতন চলছে জোর কদমে ফর্ম ফিলাপের কাজ। ভোট ঘোষণার পরেও শাসকদলের এই কাজের তীব্র বিরোধিতা করেছে বিজেপি। সরকারি স্কুলে বসে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতীক সহ দলনেত্রীর ছবি লাগানো এবং জয় বাংলা লেখা ফর্ম ফিলাপ করেন ও ফর্ম জমাও করেন খোদ তৃণমূল নেতারা। তবে বিনামূল্যে নয়। ফর্ম প্রতি নেওয়া হয় দশ টাকা করে।
কিসের ফর্ম?
জানা গেছে দু’দিন আগে লক্ষীভান্ডার ও পঞ্চাশ দিনের কাজের জন্য জব কার্ডের ফর্ম ফিলাপ করার জন্য এলাকায় মাইকিং করা হয়। দলের গলসি ১ নম্বর ব্লকের উচ্চগ্রামের অঞ্চলের অঞ্চল সভাপতি নিখিল রায়ের নির্দেশে মাইকিং হয় । মূলত তারই নির্দেশ ওই কাজ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন খোদ পঞ্চায়েত সদস্যা দুলালী বাউরি। যেখানে সরকারি অফিসারও ছিলেন বলে জানিয়েছেন দুলালী। তাকে ওই ফর্ম অঞ্চল সভাপতি পাঠিয়েছেন। সরকারি প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপ করতে টাকা নেওয়ায় কেউ নিজেরাই ফর্ম জেরক্স করে নিজেরাই ফিলাপ করছেন। ফর্ম ফিলাপ করতে প্রতি ফর্মে দশ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে তা স্বীকার করেন তৃণমূল কংগ্রেসের গ্রাম সভাপতি নাসির খান। তিনি জানান, যারা ফর্ম ফিলাপ করে দিচ্ছে তাদের দেওয়ার জন্য এই টাকা নেওয়া হচ্ছে।
এই ঘটনার তীব্র বিরোধিতা করেছে বিজেপি। বিজেপি নেতা মৃত্যুঞ্জয় চন্দ্র বলেন, নির্বাচন ঘোষণা হবার পর মানুষকে ফর্ম ফিলাপের নামে ভুল বোঝানো হচ্ছে। আবার তোলাবাজি করার জন্য টাকাও নেওয়া হচ্ছে। বিষয়টি তারা নির্বাচন কমিশনের নজরে আনবেন বলে জানান এই বিজেপি নেতা। যদিও, অঞ্চল সভাপতি নিখিল রায় জানান, আজ ফর্ম ফিলাপের ব্যাপারে তিনি কিছু জানেন না। তিনি জানান, কিছু মানুষের লক্ষীভান্ডারের টাকা অ্যাকাউন্টে ঢুকছে কিনা সেটা তারা বুঝতে পারছে না। এপ্রিল মাস থেকে এক হাজার ও বারোশো টাকা অ্যাকাউন্টে ঢুকবে সেকারণেই অনেকদিন ধরে প্রোগ্রাম চলছিল তাদের কাগজপত্র দেখে নেওয়ার। তবে আজ কোন প্রোগ্রাম করার কোন নির্দেশ তিনি দেননি। কে ফর্ম ফিলাপের জন্য টাকা নিয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানান নিখিল বাবু।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments